এপার ব্রেকিং

x

ওপার ব্রেকিং

x

র ও আইবি প্রধানের মেয়াদ শেষ ৩১ ডিসেম্বর

বুধবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮ | ৬:৩৬ পূর্বাহ্ণ

র ও আইবি প্রধানের মেয়াদ শেষ ৩১ ডিসেম্বর
র ও আইবি প্রধানের মেয়াদ শেষ ৩১ ডিসেম্বর

এপার ওপার ডেস্ক: দেশের তিন গোয়েন্দা ও গুপ্তচর সংস্থার প্রধান নিয়োগে তৎপরতা তুঙ্গে। দেশের সর্বোচ্চ তিন গোয়েন্দা ও গুপ্তচর সংস্থার প্রধান নিয়োগে জোর তৎপরতা শুরু হয়েছে সরকারের অন্দরে। ইনটেলিজেন্স ব্যুরো, রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালিসিস উইং (raw) এবং সিবিআই। এই তিন সংস্থার সর্বোচ্চ পদে বসার জন্য আইপিএস মহলে রীতিমতো প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। ‘র’ প্রধান অনিল ধামসেনা এবং আইবি প্রধান রাজীব জৈনের অবসরগ্রহণের সময় এসে গিয়েছে। চলতি মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত তাঁদের পদে থাকার মেয়াদ। শোনা যাচ্ছে ‘র’ প্রধান অনিল ধামসেনা ইন্টারপোলে যোগ দিতে পারেন। তাঁর কাছে এরকমই অফার আছে। পরবর্তী ‘র’ প্রধান পদে কে বসবেন তা নিয়ে জোর জল্পনা শুরু হয়েছে। এগিয়ে আছেন ‘র’ বিভাগেরই দুই বিশেষ সচিব, সামন্ত গোয়েল এবং কে ইলাঙ্গো। এর মধ্যে আবার সামন্ত গোয়েল বিতর্কিত সিবিআই কর্তা রাকেশ আস্থানার ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত। এমনকী, হায়দরাবাদ তথা দুবাই নিবাসী মাংস প্রক্রিয়ারকণ ব্যবসায়ী মঈন কুরেশিকে নিয়ে সিবিআই এর অন্দরের যে প্রবল গোলমাল, সেই বিতর্কেও গোয়েলের নাম জড়িয়েছে। রাকেশ আস্থানার হয়ে তিনিও ওই ডিলে ছিলেন বলে সিবিআই সূত্রেই দাবি করা হয়েছে। সুতরাং এহেন সামন্ত গোয়েলকে পরবর্তী ‘র’ প্রধানের পদে বসানো হবে কি না, তা নিয়ে চর্চা চলছে। অন্যদিকে, কে ইলাঙ্গো জম্মু কাশ্মীর ক্যাডারের অফিসার। তাঁকে নিয়ে কোনও বিতর্ক নেই। তবে যেহেতু দুজনেই বিশেষ সচিব পদে রয়েছেন, সুতরাং যে কোনও একজনই বসতে পারেন ‘র’ প্রধানের চেয়ারে। গোয়েল পাঞ্জাব ক্যাডারের। তিনি ইউরোপে ভারত বিরোধী খলিস্থানি আন্দোলনের রূপরেখাকে ট্র্যাক করে একাধিক গোপন প্লট নষ্ট করেছেন। সেই কারণে তিনি পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং এর প্রিয়পাত্র। অন্যদিকে ইলাঙ্গো ছিলেন শ্রীলঙ্কায় কর্মরত। ২০১৫ সালে তিনি কলম্বোয় ‘র’ বিভাগের স্টেশন ডিরেক্টর ছিলেন। মাহিন্দ্রা রাজাপাকসে যে ধীরে ধীরে চীনের দিকে ঝুঁকছেন, এরকম একটি আশঙ্কার রিপোর্ট তৈরির তিনি ছিলেন কারিগর। সুতরাং তিনিও বিদেশ সংক্রান্ত গুপ্তচর বিভাগের অত্যন্ত যোগ্য অফিসার। আবার ইনটেলিজেন্স ব্যুরোর ডিরেক্টর পদে এগিয়ে আছেন অরিবন্দ কুমার। বিহার ক্যাডারের অরবিন্দ কুমার কাশ্মীর বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচিত। তিনি ভারত সরকারের অন্যতম কাউন্টার টেররিজম স্পেশালিস্ট এবং জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের প্রিয়পাত্র। কিন্তু সবথেকে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে সিবিআই প্রধান নিয়ে। কে হবেন স্থায়ীভাবে সিবিআই চিফ? অলোককুমার ভার্মাকে ছুটিতে পাঠানো হয়েছে। বর্তমান অস্থায়ী সিবিআই ডিরেক্টরের হাতে কোনও ক্ষমতাই দেয়নি সুপ্রিম কোর্ট। সুতরাং আগামীদিনে দ্রুত এক স্থায়ী সিবিআই ডিরেক্টর নিয়োগ করার কথা ভাবছে সরকার। কিন্তু এখন ওই পদটি এতই উত্তপ্ত যে, কে বসবেন তা নিয়ে যথেষ্ট দোলাচল রয়েছে। কারণ লোকসভা ভোট আসছে। সুতরাং আগামী মাসগুলিতে সিবিআইয়ের সক্রিয়তা যে প্রচুর বেড়ে যাবে, তা নিয়ে সন্দেহ নেই। আবার সিবিআইয়ের অন্দরে যেভাবে ঘুষ কাণ্ড নিয়ে চাপানউতোর, মামলা মোকদ্দমা শুরু হয়েছে, তাতে সংস্থার বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে বিরোধীরা প্রশ্ন তুলছে। ফলে নয়া সিবিআই প্রধানকে সবদিক ভালোভাবে সামলাতে হবে।

Facebook Comments

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
র ও আইবি প্রধানের মেয়াদ শেষ ৩১ ডিসেম্বর
র ও আইবি প্রধানের মেয়াদ শেষ ৩১ ডিসেম্বর